যে জায়গাটিতে স্পর্শ করলে মে’য়েরা নিয়ন্ত্রণ হা’রিয়ে ফে’লে বলছে গবেষনা

মে’য়েদের কোন জায়গাটিতে স্পর্শ করলেই তাঁরা উ’ত্তেজনায় পা’গল হয়ে যায় এবং নিজের নিয়ন্ত্রণ হা’রিয়ে ফে’লে জানেন? – সদ্য প্রকাশিত এক গবেষণায় বলা হয়েছে যে, শনিবার না’রীরা বিছানায় নিজেদের নিয়ন্ত্রণ হা’রিয়ে ফে’লে।

প্রায় আড়াই হাজারেরও বেশি না’রীর উপর একটি সমীক্ষা চালিয়ে হেলথ এন্ড বিউটি রিটেইলার ’সুপারড্রাগ’ এই তথ্যটি পেশ করেছে বলে জানা গেছে। এই সমীক্ষায় বলা হয়েছে যে, বেশিরভাগ না’রীই সপ্তাহে অন্তত যে কোনও একটি রাতে নিজের যৌ’ন চে’তনায় ম’ত্ত হয়ে ওঠে,

এবং নিজের নি’য়ন্ত্রণ হা’রিয়ে ফে’লে।সেই রাতটি হলো শনিবার রাত। এই সমীক্ষায় আরও বলা হয়েছে যে, নিজেদের এই আ’কর্ষ’ণ আরও বাড়ানোর জন্য না’রীরা নাকি একাধিক পন্থা অবল’ম্বন করে থাকেন। এক্ষেত্রে তাঁরা গরম জলে স্না’ন করতে বেশি পছন্দ করেন,

এবং এই পছন্দের তালিকায় একদম প্রথমেই রয়েছে বডি স্প্রে’র ব্যবহার। তবে তাঁদের চুলের স্টাইল এবং মুখের হাসির প্রতিও তারা যথেষ্ট রকম ওয়াকিবহল। মে’য়েদের শ’রীরে এমন কিছু জায়গা আছে যেখানে স্পর্শ করলে এই রাতে মে’য়েরা অনেক বেশি ’টার্ন অন” হয়ে যায়।

কিন্তু ছে’লেরা কখনোই সেইসব অংশের দিকে নজর দেয় না। তাঁদের ফোরপ্লে শুধুমাত্র ব্রেস্ট, নিপলস আর কিসের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকে। তারপরেই তাঁরা ইন্টারকোর্সের পর্যায়ে চলে যায়।

ব্যাপারটা যেন অনেকটা একঘেয়ে টাইপের হয়ে যায়। কিন্তু কিছু কিছু এমন জায়গা আছে যেখানে জায়গায় স্পর্শ করে, ভালবেসে, মে’য়ে রীতিমত পা’গল করে দেওয়া যায়।১. ঘাড়ের পিছন দিকে :-মে’য়েদের শ’রীরের একমাত্র এই জায়গাটাই হল সবচেয়ে সে’ক্সু’য়ালি টার্নিং অন এরিয়া। ছে’লেরা কিন্তু অনেকসময় এই অংশটা এড়িয়ে যায়। কিন্তু শুধু এখানে স্পর্শ করেও একজন ম’হিলাকে দ্রুত উ’ত্তেজিত করে দেওয়া সম্ভব। একজন মে’য়ে যখন সামান্য পরিমাণ হলেও টার্ন অন থাকে তখন তার পিছন দিকের চুল আস্তে করে সরিয়ে ঘাড়ে একবার হাত বোলান এবং আস্তে আস্তে কিস করুন। দেখবেন আপনার সঙ্গিনী রীতিমত পাগ’লের মতো করবে। তারপর সামান্য লিক করুন,এবং সু’ড়সু’ড়ি দিন। দেখতে পাবেন আপনার সঙ্গিনী য’থেষ্ট রকম উ’ত্তেজিত হয়ে পড়েছেন।

২. কান:যদি কানে হালকা স্পর্শ, চুম্বন করতে পারেন, সেটাও কিন্তু মে’য়েদের অনেক বেশি সে’ক্সু’য়ালি অ্যা’ট্রাক্টেড করে। যদি তাঁর কানের উপর আস্তে আস্তে নিঃশ্বা’স ফেলতে পারেন, দেখবেন আপনার সঙ্গিনী রীতিমত পা’গলের মতো করবে, আপনিও তাঁর কানের লতিতে হালকা কা’মড় দিতে পারেন।তাঁর কানের চারপাশে যে কোনও জায়গায় আপনি যদি চান তাহলে লিক করতে পারেন, কিন্তু সবসময় মনে রাখবেন যে, কানের ছিদ্রে কিন্তু কখনোই নয়, এটি কিন্তু মে’য়েদের রীতিমত টার্ন অফ করে দেয়।

৩. উরু বা থাই:যদি কখনও মে’য়েদের দ্রুত উ’ত্তেজিত করতেযচান, তাহলে এই তিন নম্বরটির পয়েন্টটির জুড়ি মেলা ভার। সঙ্গিনীর উরুর সফট স্পটে স্পর্শ করে দেখুন, সে কি করে!৪. হাতের তালু ও পায়ের পাতা:হাত দিয়ে প্রতি মুহূর্ত স্পর্শ করছেন ঠিকই , কিন্তু জানেন কি তার হাতেই লু’কিয়ে আছে অসংখ্য সে’ক্সু’য়াল ফিলিংস। সঙ্গিনীর হাতের উপর নিজের হাতের আঙুলগুলি আলতো করে বোলাতে থাকুন, সু’ড়সু’ড়ি দিন। এটিই তাঁকে পরবর্তী সে’ক্সু’য়াল অ্যা’ক্টিভি’টিরই মেসেজ দিয়ে দেবে । দেখবেন সেও আপনার ডাকে সা’ড়া দিয়েছে। এই পদ্ধতি টার্ন অন করে দেবে আপনার সঙ্গিনীকে।

৫. পিঠ:পিঠ, বিশেষ করে পিঠের নিচ দিকে, এবং কোমরের দিকের অংশটাতে মে’য়েরা সবসময় আরামের স্পর্শ ও আ’দর চায়। এক কাজ করুন আপনার সঙ্গিনীর মেরুদন্ডের মাঝ বরাবর চুমু খেতে খেতে নিচের দিকে নেমে যান। দেখবেন তাঁর সে’ক্স করার মুড আরও বে’ড়েছে। সঙ্গিনীর প্রতি একটু বেশি যত্নশীল হন। এ প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়ে ’সুপারড্রাগ -এর সারা বোলওয়ারসন বলেছেন যে, ’আমরা একটি ভোটের ব্যবস্থা করেছিলাম, সেই ভোটের ফলের ভিত্তিতেই আমরা এই সমীক্ষাটি চালিয়েছি। তাতে দেখা গিয়েছে, নিজেদেরকে আরও কিভাবে আকর্ষণীয় দেখাতে কী কী করতে হবে, সেটা কিন্তু না’রী’রাই সবথেকে ভালো বোঝেন। কিন্তু সাধারণত না’রীরা সবসময় সে সব করেন না। সপ্তাহে যে কোনো একটি বিশেষ দিনে তাঁরা এইসব পদ্ধতি অবল’ম্বন করেন । এবং সেটি বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই শনিবারই হয় ।

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *