মাদ্রাসা ছাত্রী তানিয়ার হা’র্টে ছি’দ্র, অ’পারেশনের টাকা নেই পরিবারের

দুই ভাই বোনের মধ্যে বাবা মায়ের আদরের ছোট সন্তান তানিয়া খাতুন (১৪)। গ্রামের দাখিল মাদ্রাসায় ৮ম শ্রেণিতে পড়াশুনা করছে। ক্লাসের ছাত্রী হিসেবে ভীষন মেধাবীর সুনাম রয়েছে তার। বাবা মা’রা গেছেন প্রায় চার বছর হয়ে গেছে।

অভাবের সংসারে বাবার শূন্যতা মা কখনও বুঝতে দেয়নি। তানিয়ার স্বপ্ন ছিল কষ্ট করে লেখা পড়া করে অনেক বড় হবার। সংসারের অভাব দুর করে মায়ের মুখে হাঁসি ফোটাবে।

কয়েক মাস আগেও মেয়েটি পাড়া প্রতিবেশী সবার সাথে হাসি ঠাট্টায় মেতে থাকতো। বাবা হারা শান্ত, ভদ্র স্বভাবের মেয়েটি সবার কাছে ভীষন আদরের। কিন্তু আজ এই মেয়েটিই মৃ’ত্যু শয্যায় শায়িত।

তার জন্য কাঁ’দছেন আত্মীয় স্বজন পাড়া প্রতিবেশীরা। তিন মাস আগে প্র’চন্ড জ্ব’র থেকে শুরু তার শারীরিক অবস্থার অবণতি। একটু হাঁটা চলা ফেরা করলেই হাঁ’পিয়ে উঠতো সে।

অনেক চিকিৎসা করার পরেও তার শারীরিক অবস্থার উন্নতি না হলে সর্বশেষ ঢাকায় একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসা করাতে গিয়ে ডাক্তারী পরীক্ষা নিরিক্ষায় তার হার্টের ছি’দ্র ধরা পড়ে।

বর্তমানে শিশু তানিয়া ঢাকার শেরে বাংলা নগর জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। ডাক্তার বলেছে যত দ্রুত সম্ভব তার হার্টের অপারেশন করাতে হবে। আর এর জন্য প্রয়োজন দুই থেকে আড়াই লাখ টাকা।

পাবনার চাটমোহর উপজেলার মূলগ্রাম ইউনিয়নের কুবিরদিয়ার গ্রামের মৃত. ফরিদ হোসেন ও গৃহ কর্মী ফেলি খাতুনের মেয়ে তানিয়া খাতুন। সে কুবিরদিয়ার এম,কে,আর আহাম্মাদীয়া দাখিল মাদ্রাসার ৮ম শেণির ছাত্রী।

অসু’স্থতার কারনে পড়াশুনার জন্য মাদ্রাসায় যাওয়া বন্ধ হয়েছে প্রায় চার মাস। যেখানে অন্যসব শিশুরা পড়াশুনার জন্য মাদ্রাসায় যায় সে সময়ে তানিয়া রোগ য’ন্ত্রণায় হাসপাতালের বেডে দিন পার করে। প্র’চন্ড ক’ষ্ট আর শারীরিক ব্যা’থায় দিনে দিনে সে যেন মৃ’ত্যুর মুখে ধাবিত হচ্ছে।’

ঢাকার হৃদরোগ হাসপাতালের সংশ্লিষ্ট ডাক্তার তানিয়ার দ্রুত অপারেশনের তাগিদ দিচ্ছেন। কিন্তু তার মা যে মেয়ের অপারেশনের টাকা যোগাতে অক্ষম। কোথায় পাবে এতো টাকা? গত সপ্তাহে মেয়ের বাড়ি ফেরার ইচ্ছায় হাসপাতাল ছেড়ে গ্রামের বাড়িতে এসেছে তারা। বাড়িতে এসে শিশু তানিয়ার অবস্থা আরো অবণতি হয়েছে। শরীর, মুখ চোখ ফুলে গিয়ে প্র’চন্ড য’ন্ত্রণায় সারাদিন বিছানায় শুয়ে কাতরাচ্ছে সে। মা ফেলি খাতুন ও ভাবী সালমা বেগম তানিয়ার চিকিৎসার জন্য অর্থ সংগ্রহ করতে সারাদিন মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন। তানিয়ার মা ঢাকায় একটি বাসা বাড়িতে গৃহকর্মীর কাজ করতেন। মেয়ের পাশে সর্বসময় থাকার কারনে সে কাজটিও হারিয়েছেন তিনি।

তানিয়ার মা জানান, ছোট বেলা থেকেই আমার মেয়েটি একটু হাঁটা চলাফেরা করলেই হাঁ’পিয়ে যেতো। মাঝে মধ্যেই সে দ্রুত শ^াষ প্রশ^াস নিতো। চার মাস আগে প্র’চন্ড জ্ব’র থেকে শারীরিক অবস্থা ক্র’মশ অব’ণতি হতে থাকে। সর্বশেষ ঢাকায় জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট হাসপাতালে ভর্তি ছিল। ডাক্তার বলেছে মেয়ের হার্টের ছি’দ্র হয়েছে। দ্রুত অপারেশন প্রয়োজন। এর জন্য টাকা লাগবে আড়াই লাখ।

চোখের জল ফেলে সে আরো জানায়, এতো টাকা আমি কোথায় পাবো। মানুষের দ্বাড়ে দ্বাড়ে ঘুরছি। যে টুকু সাহায্য সহযোগীতা পাচ্ছি তা নিতান্তই সামান্য। ডাক্তার জানিয়েছে এখন তানিয়ার শরীরে ৩/৪ ব্যাগ রক্ত দিতে হবে। সে র’ক্তও যোগাড় করতে পারছি না। চোখের সামনে আমার মেয়েটি মৃত্যুর দিকে চলে যাচ্ছে আর আমি মা হয়ে তার জন্য কিছুই করতে পারছি না।

তানিয়ার পুরোপুরি সুস্থ হতে অ’পারেশনের জন্য প্রয়োজন আরও আড়াই লাখ টাকা-এমনটাই জানিয়েছেন চিকিৎসক। একজন গরীব অসহায় মায়ের পক্ষে যা যোগাড় করা কোনমতেই সম্ভব নয়। চিকিৎসার খরচ যোগাতে সমাজের হৃদয়বান ও বিত্তশালী মানুষের সহায়তা চেয়েছেন শিশুটির পরিবার।

তানিয়ার চিকিৎসার জন্য সহযোগিতা করতে চাইলে তানিয়ার মা ফেলী খাতুনের সাথে যোগাযোগ করে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিতে পারেন। হয়তো আপনার একটু ভালবাসা, একটু সহায়তায় বন্ধ হতে পারে তানিয়ার হার্টের ছিদ্র

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *